রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন ২য় বারও বার্থ হওয়ায় ক্ষুব্ধ স্থানীয়রা

রোহিঙ্গাদের মায়ানমার ফিরে যাবার অনীহার কারণে প্রত্যাবাসন না হওয়ায় ক্ষুব্ধ স্থানীয়রা। সচেতন মহলের দাবি, প্রত্যাবাসন না হওয়ার পেছনে দায়ী এনজিও সংস্থাগুলো। তাই তাদের নিয়ন্ত্রণ করা না গেলে প্রত্যাবাসন আরও কঠিন হয়ে পড়বে। তবে শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার জানান, প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া দ্রুত শুরু করার চেষ্টা অব্যাহত থাকবে ।

স্থানীয়দের দাবী, রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দিতে গিয়ে গত দু’বছরে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ১০ হাজার একর বনভূমি, কেটে ফেলা হয়েছে অর্ধ-কোটি গাছ, দু’শতাধিক পাহাড় ও ছেড়ে দিতে হয়েছে ২০ হেক্টর কৃষি জমি।

রোহিঙ্গাদের কারণে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি হচ্ছে। তাদের বিরুদ্ধে খুন, ডাকাতি, অপহরণ, ধর্ষণ, চুরি, মাদক ও মানবপাচারসহ মামলা হয়েছে ৩৮০টি। তাই এদের নিয়ন্ত্রণ করা না গেলে প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া আরও কঠিন হয়ে পড়বে বলে মনে করন স্থানীয়রা।

নকশী টিভি'র সকল অনুষ্ঠান সরাসরি দেখতে ক্লিক করুনঃ সরাসরি সম্প্রচার

ইউটিউবে নকশী টিভির জনপ্রিয় সব নাটক দেখতে সাবস্ক্রাইব করুন নকশী টিভির ইউটিউব চ্যানেল

সাম্প্রতিক খবর